ইকোব্রিক: সিন্গল ইউস প্লাস্টিক সমাধানের সবচেয়ে ভাল পথ

ড: অমিতাভ আইচ

ইকোব্রিক্ কি: ইকোব্রিক্ হল নন বায়োডিগ্রডেবল ও ফেলে দেওয়া প্লাস্টিকের বোতল ও ব্যবহারের পর ফেলে দেওয়া সিঙ্গল ইউস্ড প্লাস্টিকের ক্যারি ব্যাগ, প্যাকেট, প্লাস্টিকের কাপ, থার্মোকলের কাপ, ডিস, থালা প্রভৃতি কে পুনর্ব্যবহার করে তৈরী এক প্রকার পুনর্ব্যবহারযোগ্য নির্মান সামগ্রি বা ব্রিক বা ছোট বা হাল্কা কাজের জন্য ব্যবহার করার মতো ইটের বিকল্প।

কি কাজে লাগবে বা কেন করবো: পৃথিবী জুরে প্লাস্টিক দুষন এক ভয়ানক চেহারা ধারন করেছে। প্লাস্টিক খনিজ তেলের প্রক্রিয়াকরনজাত বর্জ্য সামগ্রি থেকে প্রস্তুত হয় ও অপচনশীল এবং এর থেকে নানা প্রকার মারাত্বক দুষিত পদার্থ নির্গত হয়।

এর মধ্যে সবচেয়ে চিন্তার বিষয় হলো একবার ব্যবহার করে ফেলে দেওয়া বা সিন্গল ইউস প্লাস্টিক, যেমন পলি ব্যাগ, স্যাচেট, পাউচ, প্লাস্টিক কাপ, ডিস, থারমোকলের থালা, কাপ, বাটি এসব। এগুলি কোনটি পলি ইথিলিন, পলিপ্রপিলিন, পলিস্টাইরিন (থারমোকল) এসব নানা প্রকারের পলিমার জাত হয়। আমাদের দেশের কেন্দ্রীয় সরকারের Plastic Waste Management Rule, 2018, এক মাত্র ৫০ মাইক্রনের নীচে প্লাস্টিক নিষিদ্ধ করার প্রস্তাব, প্লাস্টিক পোড়ানো নিষিদ্ধ করন ও নানা প্রকার সাধারন বিধিনিষেধ ছাড়া এ বিষয়ে একেবারে দিশাহীন না হলেও অপ্রতুলতায় ভরা এক নির্দেশিকা এটা বলা যায়। সবচেয়ে মারাত্বক বিষয় হলো নানা প্রকার প্লাস্টিক আমাদের খাদ্য ও পানীয়তে যে সরাসরি বিষকৃয়া ঘটাচ্ছে তাই নয় প্লাস্টিকের অতি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কনা খাদ্য শৃঙ্খলের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে সমস্ত জীবজগৎ বিশেষ করে জল ও সমুদ্রের প্রানী ও গবাদিপশুদের চরম জীবনসংকট সৃস্টি করেছে। বিজ্ঞানীরা মনে করেন যতক্ষন না পেট্রোরাসায়নিকের ব্যবহার শেষ হবে প্লাস্টিকের এই বিপদ থেকে বাঁচার অন্যতম সেরা উপায় হলো একে এমনভাবে পুনর্ব্যবহার করা যাতে পরিবেশে এর পুনর্প্রবেশ বন্ধ হয়ে যায়। অর্থাৎ আমরা এমন কোন দ্রব্য প্লাস্টিক থেকে তৈরী করতে পারি যার ফলে আমাদের খালি অর্থনৈতিক লাভই হবে না আমরা প্লাস্টিকের মাধ্যমে তৈরী হওয়া পরিবেশ দূষনকে অনেকটাই নির্মূল করতে পারবো।

মুল লক্ষ্য কি: যেহেতু কোন নির্মান কার্যে প্রচুর পরিমান ব্রিক লাগবে তাই প্রাথমিক কাজ হবে এই প্রকার ব্রিক আগে প্রচুর পরিমানে তৈরী করে ফেলা। বিষয়টি এতটিই সহজ এবং চিত্রাকর্ষক যে স্কুলের ছেলে মেয়েরা তাদের শিক্ষামূলক প্রকল্প হিসাবে এটিকে অত্যন্ত সহজে কোনো শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে গ্রহন করতে পারবে। মুল লক্ষ হলো খেলাচ্ছলে ছোটো ছেলেমেয়েদের মধ্যে প্লাস্টিক দূষনের কুপ্রভাব নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি ও ছেলে মেয়েদের মধ্যে নিজে করো ও নিজে শেখো এই বোধ জাগ্রত করা। প্রাথমিক উদ্দেশ্য হবে এই ব্রিক্ গুলি যে বিদ্যালয়ের ছেলেমেয়েরা তৈরী করেছে সেই বিদ্যালয়েরই কোন ছোট খাটো নির্মান কাজে সেগুলিকে ব্যবহার করা, যেমন পাঁচিল, বাগান, ওপেন এয়ার ক্লাস, বাচ্ছাদের খেলার জন্য কোনো কাল্পনিক প্রানী ইত্যাদি। এছাড়াও সমমাপের ইকো ব্রিক দিয়ে, বিশেষ করে ১.৫ বা ২ লিটারের নরম পানীয়ের বোতল দিয়ে তৈরী ইকো ব্রীক সিলিকন আঠা দিয়ে জুরে ঘরে বসার মোড়া বানানো যায়।

তবে সবচেয়ে কার্যকর হবে যদি মিউনিসিপ্যাল বডি গুলোর কালেকশন সিস্টেমকে কাজে লাগিয়ে যদি এটা করা যায়। সেক্ষেত্রে রাস্তা ঘাটে মানুষকে প্লাসটিকের ব্যাগ হাতে চলতে দেখলে অতি উৎসাহিত পরিবেশ কর্মীর ছোটা ছুটি ও গালি গালাজ বর্ষন ও অকারন ঝামেলায় জরিয়ে পড়ার প্রয়োজন থাকবে না। আর তা উচিৎ ও নয়। কারন সবার আগে মনে রাখতে হবে পরিবেশ আন্দোলন কোন ব্যক্তি নির্ভর স্বভাব পরিবর্তনের মতো ছোট বিষয় নয় এবং তাতে বিরাট লাভ কিছু হয় না। এর মুল কাজ বর্তমান সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক প্রক্রিয়াগুলি যেগুলি পরিবেশের পক্ষে ক্ষতিকারক সেগুলিকে ক্রমাগত পরিবর্তন করার চেষ্টা করে যাওয়া, এবং এ বিষয়ে বিজ্ঞানকে ও সত্যকে হাতিয়ার করে সরকারি অচলায়তনকে চ্যালেঞ্জ করা ও প্রশ্ন করা। এবং রাষ্ট্রযন্ত্রকে এটা বারেবারে মনে করানো যে পরিবেশ সংরক্ষন ও দূষন রোধের ও মানুষের জীবন ও জীবিকার রক্ষার দায় তাদের।

কি ভাবে করবো:
১). যে কোন প্লাসটিকের বোতল, বিশেষ করে মিনারেল ওয়াটার, সফ্ট ড্রিংক্স বা যে কোন পেট বোতল চলবে।
২). খেয়াল রাখতে হবে যে বোতল যেন যে কোন এক প্রকারের হয়, নানা প্রকার বা নানা আকার ও গড়নের বোতল এক প্রকার নির্মান কার্যে লাগা মুশকিল হতে পারে। সবচেয়ে ভালো হয়, মিনারেল ওয়াটার ও সফ্ট ড্রিংকসের ফেলে দেওয়া বোতল এলাকা থেকে সংগ্রহ করা। ১.৫ বা ২ লিটারের বোতল সাধারনত ঘরের মধ্যে ব্যবহারের উপযোগী টেবিল বা মোরা তৈরীর কাজে লাগে। অন্যদিকে ৫০০ বা ৬০০ মিলি র বা ১০০০ মিলির বোতল মুল নির্মানকারী ব্রিক হিসাবে বেশী কার্যকারী।
৩). খেয়াল রাখতে হবে যে বোতলগুলির যাতে মুখ সহ থাকে।মুখ না থাকলে ব্রিক বানানো যাবে না।
৪) এই বার যে কোন ধরনের প্লাস্টিকের প্যাকেট, স্যাচেট, পাউচ, স্টাইরোফোমের বা পলি প্রপিলিনের কাপ বা প্যকেট বা থালা, বাটির কাটা টুকরো, কেক, বিস্কুট, সাবান, দুধ,স্যাম্পুর প্লাস্টিকের প্যাকেট একটি লম্বা লাঠির সাহায্য বোতলের মধ্যে খুব চেপে চেপে ঢোকাতে হবে। প্লাস্টিক ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিতে পারলে ঢোকানো সহজ হবে ও প্যাকিং ও ভাল হবে।
৫). প্যাকিং এতটাই শক্ত হবে যে ভালো মতো প্যাক হয়ে গেলে একজন প্রমান সাইজের মানুষ কোনো প্রকার বিকৃতি না ঘটিয়ে এই বোতল গুলির উপর দাঁড়াতে পারবে। ভালোভাবে প্যাক করা এরকম একটা ৫০০ মিলি বোতলের ওজন হবে ১৬৬ গ্রাম আর ১.৫ মিলির ৫০০ গ্রাম। এই হিসাবে বাকি গুলি কম বেশী হবে। (বোতলের ভলুম কে তিন দিয়ে ভাগ করা হয়েছে)। এরকম হয়ে গেলে বুঝবেন আমাদের ইকো ব্রিক্স তৈরী হয়ে গেলো।
৬). তৈরী হয়ে গেলে এগুলি নম্বর ও নির্মানকারীর নাম লিখে সংরক্ষণ করতে হবে ব্যবহারের জন্য। মনে রাখতে হবে প্লাস্টিক ভরার সময় রঙীন প্লাসটিক বোতলের তলায় ও কোনের দিকে দিলে দেখতে ভালো হয় আবার বোতলের মাঝে কিছুটা জায়গা সাদা প্লাস্টিক দিলে নাম, নম্বর এসব মার্কার পেন দিয়ে লিখতে সুবিধা হবে।

গুরুত্বপূর্ণ বিষয়: মনে রাখতে হবে যে কাগজ, সুঁচালো জিনিষ বা কোন পচনশীল দ্রব্য ইকো ব্রিক্স তৈরীর কাজে ব্যবহার করা যাবে না। এছাড়া প্লাস্টিকের প্যাকেট ও প্লাস্টিকের বোতল যেন পরিস্কার ও শুখনো থাকে। কোনো ভাবেই ফাটা বোতোল যেন ব্যবহার করা না হয়। পাতলা ফাটা প্লাস্টিকের বোতল কেটে টুকরো করে বোতলে ফিলার হিসাবে ভরা যেতে পারে।

আমাদের প্রাথমিক ভাবে প্লাসটিক বর্জ্য সঞ্চয় করার স্থান, কাজ করার জায়গা বা Working Place এবং ইকোব্রিক গুলি সংরক্ষনের জায়গা লাগবে। মনে রাখতে হবে ইকোব্রিক গুলি সূর্যের আলোর আরালে রাখতে হবে, কারন প্লাস্টিক সূর্যের অতি বেগুনী রশ্মির প্রভাবে ফোটো ডিগ্রেড করে।

নোট:সকল প্রকার অলাভজনক ও শিক্ষা ও পরিবেশ পাঠ বিষয়ক কাজের জন্য ব্যপক ও বিনামুল্যে উপযুক্ত স্বীকৃতি সহ ব্যবহার যোগ্য ও http://www.ecobricks.org থেকে নথিভুক্ত ব্যবহারকারী হিসাবে ওপেন সোর্স মেটেরিয়াল দ্বারা নির্মিত।
লেখক পরিচিতি: পরিবেশ গবেষক, শিক্ষক, অ্যক্টিভিস্ট ও লেখক।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

%d bloggers like this:
search previous next tag category expand menu location phone mail time cart zoom edit close